ভালোবাসার ভালোবাসা / শ্রাবন্তী নাহা অথৈ

ভালোবাসা দিবসে উপহারের জন্য ভালোবাসার শ্রেষ্ঠ দুটি বই

শ্রাবন্তী নাহা অথৈ

বইয়ের চেয়ে উত্তম উপহার এবং ভালোবাসার চেয়ে শ্রেষ্ঠ কাজ আর নেই। আর এই দুটির সমন্বয় যদি ঘটানো যায় তাহলে যে কারো জীবন হয়ে ওঠে মধুর এবং ভালোবাসাময়। যে জীবনে ভালোবাসা থাকে সে জীবনে সবকিছু পাওয়া হয়ে যায়। জীবন হয়ে ওঠে স্বর্গীয় প্রাপ্তির চেয়ে প্রত্যাশিত সুখের বিরল উৎস। প্রত্যেকের চিন্তা-চেতনা, চাওয়া-পাওয়া, রুচি-অরুচির ভিন্নতা আছে, আলাদা অনুভূতি আছে, যা ব্যক্তিবিশেষে ভিন্ন। কিন্তু ভালোবাসা এবং বস্তু হিসেবে বইয়ের ক্ষেত্রে সবার ইচ্ছা অভিন্ন। ভালোবাসা পেলে যে খুশি হয় না সে পশুও নয়, জড়; মরা লাশ। বই পেয়ে যে আপ্লুত হয় না, সে লাশের চেয়েও অধম। তবে বই হতে হবে প্রিয়জনের মনকে নাড়া দেওয়ার মতো অনিন্দ্য। আমি এখানে এমন দুটি বই নিয়ে আলোচনা করব, যে বই দুটি আপনার প্রিয়জনকে দিলে এবং আপনার প্রিয়জন আপনাকে দিলে পরস্পরের প্রতি শুধু ভালোবাসা নয়, গভীর কৃতজ্ঞতার নিবিড় আবেশে নতুন একটা জগৎ সৃষ্টি হওয়ার ক্ষেত্র প্রস্তুত হয়ে যাবে। বহুগুণ বেড়ে যাবে পরস্পর প্রীতি। কারণ বই দুটিতে এমন বিষয় আছে, যা ভালোবাসার মূল্য কী এবং কীভাবে, কোথায় কাকে ভালোবাস দিতে হয় এবং…

প্রত্যয়-পাঠ / অভিজিৎ অভি


ব্যাকরণের সবচেয়ে কঠিন অধ্যায় হল প্রকৃতি-প্রত্যয় (ব্যক্তিগত অভিমত)। তবে কিছু সহজ নিয়ম দিয়ে অনেকগুলো জটিল শব্দের প্রত্যয় সহজে ব্যাখ্যা করা যায়। আজ তেমন একটি নিয়ম দেখা যাক।
নিয়ম: উ+অ=ব।
ষ্ণ একটি তৎসম তদ্ধিত প্রত্যয়, এর ‘ষ’ ও ‘ণ’ ইৎ হয়ে যায় বা হারিয়ে যায় এবং শুধু ‘অ’ থাকে। যদি প্রকৃতির শেষে ‘উ’ থাকে, তাহলে উ আর অ মিলে ‘ব’ হয়ে যায়। এর সাথে আদিস্বরের বৃদ্ধিও(অ>আ, ই,ঈ>ঐ, উ,ঊ> ঔ, ঋ>আর) ঘটে। এই নিয়মের কতগুলো শব্দ:
মনু+ষ্ণ=মানবধাতু+ষ্ণ=ধাতববস্তু+ষ্ণ=বাস্তবপাণ্ডু+ষ্ণ=পাণ্ডবভৃগু+ষ্ণ=ভার্গবকুরু+ষ্ণ=কৌরবসুষ্ঠু+ষ্ণ=সৌষ্ঠববন্ধু+ষ্ণ=বান্ধবযদু+ষ্ণ=যাদবপশু+ষ্ণ=পাশবঋজু+ষ্ণ=আর্জবগুরু+ষ্ণ=গৌরবলঘু+ষ্ণ=লাঘবরঘু+ষ্ণ=রাঘববসু+ষ্ণ=বাসবজন্তু+ষ্ণ=জান্তবদনু+ষ্ণ=দানববিষ্ণু+ষ্ণ=বৈষ্ণবমধু+ষ্ণ=মাধব

Comments